কলকাতা২৪লাইভ (kolkata24live) :     ১৯৯১ সালের রাজীব গাঁধী হত্যা মামলায় সাজাপ্রাপ্ত শ্রীলংকার বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন তামিল টাইগার্স এর আসামি রবার্ট চাইলেন স্বেচ্ছামৃত্যু। ২৬ বছরের কারাজীবন অতিক্রম এর পর এমনি সিদ্বান্ত নিলেন তিনি। রাজীব হত্যা কাণ্ডে জড়িত  সাত জনের তিনজনকে মৃত্যু দন্ড ও চার জনকে আমৃত্যু ককরাদণ্ড দিয়েছিলো সরকার।পরে অবশ্য মৃত্যুদণ্ড সাজাপ্রাপ্ত আসামিদের প্রাণভিক্ষা চাওয়ায় আমৃত্যু কারাদণ্ড দেয়া হয় তাদেরও। কিন্তু ২৬ বছর কারাজীবন অতিক্রম করে রবার্ট স্বেচ্ছা মৃত্যু চাইলেন যার কারণে হিসাবে তিনি বলেন পরিবার থেকে কেউ তাকে আর দেখতে আসেও না এবং তারও মুক্তির আশা নাই অতএব তিনি স্বেচ্ছায় মৃত্যু দ্বন্দ্বের আদেশ চাইলেন। প্রসঙ্গত তামিলনাড়ু সরকার চেয়েছিলো বন্দীদের মুক্তি দিতে কিন্তু তার বিরুদ্ধে আবেদন করে কেন্দ্রীয় সরকার। যার পরিপ্রেক্ষিতে সুপ্রিম কোর্ট জানায় কোনোভাবেই মুক্তি দেয়া যাবে না বন্দীদের। রাজীব গান্ধীকে হত্যায় জড়িত সবাই শ্রীলঙ্কার বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন তামিল টাইগার্সের সদস্য। ওই হত্যা মামলায় তিন আসামিকে মৃত্যুদ- ও চারজনকে আমৃত্যু কারাদ- দিয়েছিল আদালত। পরে মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত আসামিদের প্রাণভিক্ষার আবেদনের প্রেক্ষিতে তাদের সাজা কমিয়ে আমৃত্যু কারাদন্ডের আদেশ দেয় কর্তৃপক্ষ।